অন্যান্য প্রোডাক্টিভিটি মোটিভেশন রিলেশনশিপ লাইফ হ্যাক লাইফস্টাইল 

আপনি নিজের অজান্তেই পক্ষপাতিত্ব করছেন! কিন্তু কিভাবে?

মানুষ কখনওই নিরপেক্ষ নয় এবং এটা খুবই স্বাভাবিক। কখনও কখনও মানুষ নিজের অজান্তেই পক্ষপাতিত্ব করে ফেলে। আবার কখনও কখনও অভ্যাসের কারনেও এমনটা করে থাকেন।

এঙ্করিং বায়াসঃ প্রথম তথ্যের উপর ভিত্তি করে যেকোনো কিছুর উপর পক্ষে বা বিপক্ষে সিদ্ধান্ত নেয়া। যেমনঃ কোনো কিছুকে প্রথম পাওয়া বা শোনা তথ্যের উপরে ভিত্তি করে লাভ-ক্ষতি অথবা ভাল-খারাপ যাচাই করা।

এভেইল্যাবিলিটিই বায়াসঃ শুনা খবর বা আলোচনার উপরে ভিত্তি করে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া। যেমনঃ সাধারণত খবর বা টিভি চ্যানেলে আমরা যা শুনি বা দেখি তাই বিশ্বাস করি, যেকোনো বিষয় গভীর ভাবে আলোচনা আমরা খুব কম করে থাকি।

মেজরিটি ইফেক্টঃ সবার সাথে তাল মিলিয়ে নিজের সিদ্ধান্তের পরিবরতন করা। যেমনঃ বেশি সংখ্যক মানুষ যে পক্ষে মতামত দেয় তার উপরে ভিত্তি করে নিজের মতামত পরিবর্তন করে যেই পক্ষে মতামত বেশি সেই পক্ষে মতামত দেয়া।

সাপোর্ট বায়াসঃ নিজের জিনিসকে সর্বোত্তম মনে করা। ধরুন, আপনি আইফোন ব্যবহার করেন তাই আইফোন সব ভাল দিক আপনি দেখবেন বা দেখতে চাইবেন অথবা ভাল মনে করবেন। অপরদিকে আন্ড্রয়েড ফোন খারাপ দিক গুলোও খোঁজার চেষ্টা করবেন।

কনফার্ম বায়াসঃ আমরা যে তথ্য আগে থেকে জানি সেটা আরেকজনের কাছে থেকে শুনে নিশ্চিত হওয়া। যেমন, প্লেনে ভ্রমন করলে সময় কম লাগে তার পরেও আমরা সবার কাছ থেকে এই একি তথ্য শুনতে চেষ্টা করি।

ইগনোর বায়াসঃ যেকোনো জিনিসের খারাপ দিক এড়িয়ে চলা। যেমন, ধূমপান স্বাস্থের জন্য ক্ষতিকর এটা আমরা সবাই জানি কিন্তু তা জানা সত্ত্বেও ধূমপায়ীরা ধূমপান করেন।

আউটকাম বায়াসঃ কোনো কাজের ফলাফলের উপরে সিদ্ধান্ত নেয়া। ধরুন, একটি কোম্পানিতে কিছু মেম্বার কোনো সিধান্ত দিলেন অনেক যাচাই বাছাই করার পরে কিন্তু মালিক নিজের ইচ্ছে অনুযায়ী সিধান্ত নিল এবং সে সফল ও হল। এই সফলতার পরে ভেবে নেয়া যে মালিকের সিধান্তই ঠিক, এটাই আউটকাম বায়াস।

ওভারকনফিডেন্স বায়াসঃ নিজের অনুমানের উপরে সিধান্ত নেয়া। যেমন, কেউ অনুমান করে কোনো সিদ্ধান্ত নিল সেটি সঠিক হলে নিজের আনুমানের উপরে সম্পূর্ণ ভাবে নির্ভর করাই হল ওভারকনফিডেন্স বায়াস।

সারভাইভার বায়াসঃ যা অবশিষ্ট আছে বা চোখে দেখা যায় তার উপরে নির্ভর করে সিধান্ত নেয়া। যেমনঃ কিছু যুগ যুগ পুরোনো কিছু বাড়ি যেগুলো এখন ও টিকে আছে ,সেগুলো ভালো লোহা দিয়ে বানানো এমনটা ভাবা হল সারভাইভার বায়াস, কারন এমন অনেক বাড়ি হয়ত আগে ছিল যেগুলো ভেঙ্গে গেছে ।

পজেটিভ বায়াসঃ যে সম্পর্কে পজেটিভ ধারনা আছে সেটা খুজে বের করা। যেমনঃ টিভিতে যদি কখনও ধূমপানের ক্ষতিকর দিক নিয়ে বিজ্ঞাপন দেয় তাহলে সেটা অনেকেই এড়িয়ে যায় কিন্তু যদি ক্রিকেটের কোনো সংবাদ দেখায় তখন সবাই সেটা অনেক আগ্রহ নিয়ে দেখেন কারন ক্রিকেট সম্পর্কে সবারই ধারনা পজেটিভ ।

প্লেসবো বায়াসঃ নির্ভরযোগ্য কারো কথা অন্ধের মত বিশ্বাস করা। যেমন, ডাক্তার যখন বলেন কোনো ঔষধ খেলে রোগী সুস্থ হয়ে যাবে,সেই ঔষধ যদি কোনো কাজও না করে তারপরেও রোগী ভাবে যে সে সুস্থ হচ্ছেন।

বায়াস বায়াসঃ নিজেকে সবসময় নিরপেক্ষ মনে করা। যেমনঃ একজন ছাত্র যদি তার শিক্ষকে কোনো গিফট দেয় এবং পরের কোনো পরীক্ষায় যদি ভালো নাম্বার আশে তবে সেই শিক্ষক বলবেন যে গিফটের জন্য ফলাফলে কোনো প্রভাব পড়েনি কিন্তু অন্য শিক্ষকের ক্ষেত্রে একই ঘটনা হলে তিনি বলবেন যে অবশ্যই গিফট ফলাফলে প্রভাব ফেলে।

Comments

comments

Related posts