Super Life Hackলাইফ হ্যাক 

দ্রুত শেখার সহজ উপায়

অনেকেই যেকোনো কিছু শেখার পেছনে প্রচুর সময় ব্যয় করেন। যার কারণে জীবনে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও অনেকেই শিখতে ব্যর্থ হন। শুধুমাত্র সময় এবং কিছু কৌশলের অভাবে এমনটা হয়। যদি নিম্নের কিছু কৌশল অবলম্বন করা হয় তাহলে অল্প সময়ের মধ্যেই অনেক কিছু শিখে ফেলা সম্ভবঃ

হাতে কলমে শেখাঃ পুঁথিগত বিদ্যার উপরে বেশি জোর না দিয়ে হাতে কলমে শেখার উপরে বেশি গুরুত্ব দেয়া। যেমনঃ ধরুন, আপনি গিটার শিখতে চান। আপনি খুব দ্রুত শিখতে পারবেন যদি গিটার বাজানোর একাধিক বই কম পড়ে নিজ হাতে গিটার বাজিয়ে শিখেন। কারন বই হয়ত আপনাকে বলে দিবে কোন স্ট্রিং এর কাজ কি কিন্তু তার সুর কেমন হবে তা বলে দেবে না।

অধ্যবসায়ী হওয়াঃ কথায় আছে একবার না পারিলে দেখ শতবার। আঁকা সুন্দর হচ্ছে না তার মানে আঁকা বন্ধ করা যাবে না, বার বার চেষ্টা করতে হবে।

একটি কাজে মনোযোগ দেয়াঃ এক সময় একটি কাজে মনোযোগ দেয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দুই তিনটি কাজ একসাথে করলে মনোযোগ ভাগ হয়ে যায়। যার কারণে সময় বেশি লাগার পাশাপাশি সঠিক ভাবে কিছু শেখা যায় না। যেমনঃ কারও যদি একাধিক  ভাষা শেখার ইচ্ছা থাকে তবে তাকে একটি একটি করে ভাষা শেখা উচিৎ। কখনই ফারসি এবং জার্মানি ভাষা একসাথে শেখা সম্ভব না যদিও এই দুইটি ভাষা অনেকটাই কাছাকাছি।

পর্যাপ্ত ঘুমানোঃ দ্রুত শেখার জন্য দিনরাত তার পিছনে সময় ব্যয় করলেই দ্রুত শেখা সম্ভব নয়। পর্যাপ্ত ঘুম বা বিশ্রাম অনেক জরুরী পর্যাপ্ত ঘুম মস্তিষ্ককে বিশ্রাম দেয়, চিন্তা শক্তি বাড়ায় এবং একঘেয়েমি ভাব দূর করে।

টাইপিং এর পরিবর্তে নোট নেয়াঃ কম্পিউটার এবং মোবাইল ফোন আশার কারণে এখন কাগজ কলমের ব্যবহার  কমে গিয়েছে। কিন্তু পুরোপুরি ডিভাইসের উপরে নির্ভর করা সবসময় ঠিক নয়। কারণ রিসার্চ অনুযায়ী হাতে লেখা কোন তথ্য মস্তিষ্ক তিন গুন বেশি সময় পর্যন্ত মনে রাখতে পারে। তাছাড়া ডিভাইস যেকোনো সময় নষ্ট  বা হারিয়ে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে।

পুনরাবৃত্তি করাঃ  আপনি যাই শেখেন না কেন যদি তার চর্চা না করেন তবে একসময় ভুলে যাওয়াটা স্বাভাবিক। তাই  সবকিছুর পুনরাবৃত্তি করা উচিৎ। যেমনঃ একজন গায়কও প্রতিদিন রেওয়াজ করে তার কণ্ঠ এবং বিদ্যা ঠিক রাখার জন্য।না হলে গানের কণ্ঠ নষ্ট বা গান ভুলে যাওয়ার সম্ভবনা থাকে।

নতুন ও পুরনো  জিনিস মিলানোর চেষ্টা করাঃ পুরনো জ্ঞান বার বার চর্চা করা যেমন উচিৎ সেই সাথে নতুন তথ্যর সাথে পুরনো তথ্যর সম্পর্ক তৈরি করাও অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এমন না হলে জ্ঞান অধিক সময় ধরে কাজে লাগানো সম্ভব হয় না। কারণ বর্তমানে সবকিছু খুব দ্রুত আপডেট এবং পরিবর্তন হচ্ছে। তাই চর্চার পাশাপাশি আপগ্রেডেশন প্রয়োজন।

Comments

comments

Related posts