প্রোডাক্টিভিটি মোটিভেশন রিলেশনশিপ লাইফ হ্যাক লাইফস্টাইল সাইকোলজি 

মিথ্যা বোঝার সহজ উপায়!

অনেকে অল্প কিছু সুবিধা ভোগ করার জন্য মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে থাকেন। আবার কেউ কেউ কিছু ভুল বা বিপদ এড়ানোর জন্যও মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে থাকেন। সাময়িক ভাবে সেই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া গেলেও পরবর্তীতে এই ছোট ছোট মিথ্যা অনেক বড় সমস্যার সৃষ্টি করে। এক পলকে দেখে নিন মিথ্যা কথা বলার সময় সাধারণত যে বিষয় গুলো দেখা যায় –

    • শ্বাসপ্রশ্বাসে পরিবর্তনঃ মিথ্যা বলার সময়  অনেকের নিশ্বাস ভারী হয়ে যায় এবং সেই সাথে কথা বলার ধরনেও পরিবর্তন দেখা যায়। যেমনঃ ভাসা ভাসা ভাবে কথা বলা, গলার স্বর বসে যাওয়া।
    • অপ্রয়োজনীয় এবং অতিরিক্ত শব্দ ব্যবহার করাঃ মিথ্যা বলার সময় সাধারনত একই শব্দ বার বার ব্যবহার করা হয়ে থাকে কারন এতে করে যাকে বা যাদের মিথ্যা বলা হচ্ছে তাদের থেকে অতিরিক্ত কিছু সময় পাওয়া যায় মিথ্যাকে সত্য হিসেবে বোঝানর জন্য।
    • অতিরিক্ত যুক্তি দেখানোঃ যখন কেউ মিথ্যা বলে থাকে সাধারনত তাদের মাঝে একটা ভয় কাজ করে মিথ্যা সবার সামনে চলে আসার। তাই প্রতিনিয়ত তাদের মিথ্যাকে ঢাকার জন্য অতিরিক্ত যুক্তি দেখিয়ে থাকে।

  • প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত তথ্য দেয়াঃমিথ্যাকে ঢাকার জন্য বা মিথ্যাকে সত্যি প্রমাণ করার জন্য তার পিছনে অতিরিক্ত তথ্য দিয়ে মিথ্যাকে যুক্তিযুক্ত করার চেষ্টা করা হয়ে থাকে অনেক ক্ষেত্রে।
  • কথা বলতে সমস্যা দেখা যাওয়াঃ অনেক সময় দেখা যায় যে অনেকের কথা আটকে যায় যখন তারা মিথ্যা বলার চেস্টা করে। সাধারনত অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা বা মানসিক চাপে থাকলে কথা বলার সময় মুখ শুখিয়ে যায় । যারা সাধারনত মিথ্যা বলেন না তাদের ক্ষেত্রে এটা বেশি দেখা যায়।
  • দীর্ঘক্ষণ সোজা হয়ে দাড়িয়ে থাকাঃ নিশ্চিন্ত মনে দাড়িয়ে থাকা, স্বাভাবিক নড়াচড়া  মানুষের অজান্তেই চলে আশে। তাছাড়া সাধারনত মানুষ কখনোই দীর্ঘক্ষণ সোজা হয়ে  বা  নড়াচড়া না করে  দাড়িয়ে থাকতে পারে না। যদি কখনও এমন হয় তবে এটি সন্দেহজনক হতে পারে।
  • হাত দিয়ে মুখ এবং শরীর আবদ্ধও করে ফেলাঃ মিথ্যা বলার সময় অনেকে নিজের অজান্তেই মুখে হাত দিয়ে মুখ ঢেকে ফেলে।অনেকে দুই হাত দিয়ে নিজের দেহের সামনের দিকটা আবদ্ধও করে রাখেন। এটা অনেকটা নিরাপত্তা প্রকাশ করে।  এটাও মিথ্যা ধরার আরও একটি উপায় হয়ে থাকে।
  • এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে কথা বলাঃ সাধারনত কারো সাথে কথা বলার সময় এক দৃষ্টিতে কারও দিকে তাকিয়ে থাকা সম্ভব হয় না। কিন্তু যারা মিথ্যা বলে থাকে তারা শ্রোতার দিকে এক দৃষ্টিতে তাকিয়ে তার মনোযোগ কাড়ার চেষ্টা করে থাকে।

পকেটে হাত রাখা, হাত মুঠ করে রাখা, অহেতুক হাতের নড়াচড়া করাও অনেক সময়  মিথ্যা  কথা বোঝার জন্য কাজে লাগে।

 

Comments

comments

Related posts